১০ বছর সরকারে থেকে সবটা খেয়ে এখন এর-ওর সঙ্গে যোগাযোগ-নাম না করে শুভেন্দুকে বিঁধলেন মমতা

Main দেশ রাজ্য
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Published on: ডিসে ১৫, ২০২০ @ ১৯:২০

এসপিটি নিউজ, জলপাইগুড়ি, ১৫ ডিসেম্বর: জলপাইগুড়ির সভা থেকে নাম না করে একেবারে সরাসরি শুভেন্দু অধিকারীর বিরুদ্ধে তোপ দাগেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।মমতা বলেন- “১০ বছর সরকারের সরকারের সবতা খেয়ে এখন  এর-ওর সঙ্গে যোগাযোগ করছে। এসব আমি বরদাস্ত করব না।” কিন্তু তাঁর এই বরদাস্ত করাটা যে শুভেন্দুর ক্ষেত্রে আদৌ কতটা কাজ করবে তা আগামী কয়েক দিনের মধ্যে পরিষ্কার হয়ে যেতে চলেছে। কারণ, শুভেন্দুর ঘনিষ্ঠ মহল সূত্রের খবর, শুক্রবারই বিজেপিতে যোগ দিতে পারেন তিনি।

১০ বছর পার্টিতে থেকে সবটা খেল

এদিনি জলপাইগুড়িতে দলীয় সভা মঞ্চ থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় শুভেন্দু অধিকারীর নাম না করে বলেন-“আমি বড় কিংবা ও বড় ওসব দেখার প্রয়োজন নেই। ১০ বছর পার্টিতে থেকে সবটা খেল , সরকারে থেকে সরকারের সবটা খেয়ে এখন নির্বাচনের সময় এর-ওর সঙ্গে যোগাযোগ করছে। এসব আমি বরদাস্ত করব না। ৩৬৫ দিন যারা কাজ করে যারা গত ১০ বছর ধরে কাজ করে এসেছে এবার তাদের পরীক্ষা দিতে হবে।”

গণতন্ত্রকে ফিরিয়ে আনতে হবে

এরই মধ্যে পূর্ব মেদিনীপুরের একটি অরাজনৈতিক মঞ্চ থেকে একেবারের সরাসরি আক্রমণ করেন এদিন শুভেন্দু অধিকারী।হলদিয়ার হেলিপ্যাড ময়দানে স্বাধীনতা সংগ্রামী তথা তাম্রলিপ্ত সরকারের সর্বাধিনায়ক সতীশ সামন্তর ১২১ তম জন্মদিবস উদযাপন অনুষ্ঠান ছিল। সেখানে এক সভায় শুভেন্দু তৃণমূলকে কে হাত নিয়ে বলেন- “সংবিধানে আছে ফর দ্য পিপল, অফ দ্য পিপল, বাই দ্য পিপল। কিন্তু এখন হর দ্য পার্টি, বাই দ্য পার্টি কেন থাকবে? এটা গণতন্ত্রের পক্ষে ক্ষতিকারক। এই গণতন্ত্রকে ফিরিয়ে আনতে হবে।”

তাদের অবস্থা অনিল বসু, লক্ষণ শেঠদের মতো হবে

এরপর শুভেন্দু ঝাঁঝালো সুরে বলেন- “আমি ব্যক্তগত আক্রমণ পছন্দ করি না। কিন্তু যাঁরা পদে আছেন, তারা আমাকে ব্যক্তিগতভাবে আক্রমণ করছেন, আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছেন। তার বুঝতে পারছেন না যে সাধারণ মানুষের আঙুলটা এমন জায়গায় পড়বে যে তাদের অবস্থা অনিল বসু, লক্ষণ শেঠদের মতো হবে। আমি মন্ত্রিত্ব ছেড়েছি। আমি পদের জন্য রাজনীতি করি না। এই যে আজ আমার সভায় এত লোক এসছে তাদের তো কংগ্রেস, সিপিএম, বিজেপি আনেনি। আসলে মানুষের সঙ্গে আজও আমার সম্পর্ক অটুট আছে। এ সম্পর্ক ভাঙা যাবে না কোনওদিন।

জন্মদিনের শুভেচ্ছা শুভেন্দুকে

এরপর শুভেন্দু সকলের উদ্দেশ্যে বলেন- হলদিয়া বন্দর প্রয়াত স্বাধীনতা সংগ্রামী সতীশ সামন্তর নামে করার উদ্যোগ নেওয়া হবে। এদিন বিজেপির কেন্দ্রীয় কমিটির সাধাররণ সম্পাদক কৈলাস বিজয়বর্গীয় ফোনে শুভেন্দু অধিকারীকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানান।তবে কোনও রাজনৈতিক কথা হয়নি বলে তিনি জানিয়েছেন।

শুক্রবার দিতে পারেন বিজেপিতে যোগ

সূত্রের খবর, আগামী শুক্রবার দিল্লিতে আনুষ্ঠানিকভাবে কেন্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের উপস্থিতিতে বিজেপিতে যোগ দেবেন শুভেন্দু অধিকারী।এরপর শনিবার অমিত শাহের সঙ্গে ফিরে আসবেন রাজ্যে। তারপর মেদিনীপুরে অমিত শাহের সভায় উপস্থিত থাকয়ারও সম্ভাবনা আছে বলে জানা গেছে।

Published on: ডিসে ১৫, ২০২০ @ ১৯:২০


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *