থাইল্যান্ড বিমানবন্দরগুলিতে যাত্রী 50% এরও বেশি হ্রাস পেতে পারে- মনে করছে AOT

অর্থ ও বাণিজ্য কোভিড-১৯ বিদেশ বিমান ভ্রমণ
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

  • থাইল্যান্ডের বিমানবন্দরগুলি (এওটি) মনে করছে যে সেপ্টেম্বরে শেষ হওয়া অর্থবছরের জন্য যাত্রীর সংখ্যা 66.58  মিলিয়ন হ্রাস পাবে।
  • সেপ্টেম্বর 2019 -এর শেষ হওয়া আর্থিক বছরে প্রায় 9,00,000 উড়ান এবং 141.8 মিলিয়ন যাত্রী থাইল্যান্ডে এসেছে।
  • বুকিং থেকে লাভ হয়েছে  25 বিলিয়ন বাট( 773 মিলিয়ন ডলার)।
  • সতর্কতামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করে আগামী 2মে দেশের ভিতর উড়ান পরিষেবা পুনরায় চালু করবে থাইল্যান্ড।
 Published on: এপ্রি ২২, ২০২০ @ ১৮:২৫
Reporter: Aniruddha Pal

এসপিটি নিউজ  : থাইল্যান্ড বিমানবন্দর নিয়ে এক রিপোর্ট প্রকাশ করেছে সংবাদ সংস্থা রয়টার্স। সেখানে তারা থাই বিমানবন্দরগুলি এই সময় কতটা আর্থিক দিক দিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হতে চলেছে তা পরিসংখ্যান দিয়ে জানিয়েছে। তারা কথা বলেছে বিমানবন্দরের কর্তৃপক্ষের সঙ্গে।থাইল্যান্ডের রাষ্ট্রায়ত্ত বিমানবন্দর পিসিএল (এওটি.বিকে) বুধবার জানিয়েছে যে নতুন করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের ফলে এ বছর বিমানবন্দরগুলি দিয়ে যাতায়াতকারী যাত্রীদের সংখ্যা 53% হ্রাস পাবে বলে তারা মনে করছে।

AOT আশঙ্কা করছে

এয়ারপোর্টস অব থাইল্যান্ড (AOT) মনে করছে যে সেপ্টেম্বরে শেষ হওয়া অর্থবছরের জন্য যাত্রীর সংখ্যা 66.58  মিলিয়ন হ্রাস পাবে এবং ফ্লাইটের সংখ্যা 44.9% কমে 4,99,800 এ নেমে যাবে।এওটি, যা দেশের বৃহত্তম আন্তর্জাতিক কেন্দ্র, সুবর্ণভূমি বিমানবন্দর সহ ছয়টি বিমানবন্দর পরিচালনা করে- তারা দেখেছে যে  সেপ্টেম্বর 2019 -এর শেষ হওয়া আর্থিক বছরে প্রায় 9,00,000 উড়ান এবং 141.8 মিলিয়ন যাত্রী এখানে এসেছে। বুকিং থেকে লাভ হয়েছে  25 বিলিয়ন বাট( 773 মিলিয়ন ডলার)।

পুনরুদ্ধার একাধিক কারণের উপর নির্ভর করছে

বিমানবন্দর অপারেটর বলছিলেন যে, বিমান চলাচল এবং যাত্রীদের সংখ্যা বৃদ্ধির পরিমাণ পুনরুদ্ধার একাধিক কারণের উপর নির্ভর করবে-

  • ১)যার মধ্যে দেখতে হবে যে দেশগুলি কীভাবে প্রাদুর্ভাব নিয়ন্ত্রণ করছে।
  • ২) তাদের প্রতিরোধের পদ্ধতি কেমন হচ্ছে এবং অবশ্যই
  • ৩)একটি ভ্যাকসিন আবিষ্কার। তিনি এখানেই থেমে থাকেননি। আরও জানান-” বিমান ব্যবসা পুনরুদ্ধার গন্তব্য দেশগুলির উপর নির্ভর করবে। থাইল্যান্ডের জন্য এটি এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় দেশগুলিকে অন্তর্ভুক্ত করবে, যাদের উপর গন্তব্যের ৮০% যুক্ত আছে।” এওটি জানিয়েছে- আন্তর্জাতিক বিমান পরিষেবা চালুর আগে তারা দেশীয় বিমান পরিষেবা চালু করে এই ব্যবসা পুনরুদ্ধারের চেষ্টা চালাবে। বাণিজ্যিক বিমান ভ্রমণ সমস্ত বন্ধ হয়ে গেছে কারণ করোনভাইরাসটি ছড়িয়ে পড়েছে।

এপ্রিলের শুরুতে নিষেধাজ্ঞা জারি

এপ্রিলের শুরুতে দেশটির বিমান চলাচল নিয়ন্ত্রণকারী এই ভাইরাসটির জন্য মাসের শেষ অবধি যাত্রীদের বিমানযাত্রার উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে। মার্চ মাসে সরকার অনাবাসী বিদেশিদের প্রবেশ নিষিদ্ধ করেছিল।বাজেট ক্যারিয়ার থাই এয়ার এশিয়া (এএভি.বিকে) এবং থাই লায়ন এয়ার জানিয়েছে যে তারা যাত্রীবাহীদের মুখোশ পরিয়ে এবং সামাজিক দূরত্ব পর্যবেক্ষণ সহ সতর্কতামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করে আগামী 2 মে দেশের ভিতর উড়ান পরিষেবা পুনরায় চালু করবে।থাইল্যান্ডে করোন ভাইরাসে এ পর্যন্ত 48 জন মারা গিয়েছে এবং মোট 2,826 টি নিশ্চিত কেস রয়েছে।

দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দ্বিতীয় বৃহত্তম অর্থনীতিটি 1.3 ট্রিলিয়ন বাট হারিয়েছে, যার বেশিরভাগ পর্যটন খাতে রয়েছে।

করোনাভাইরাস নিয়ে বিশ্বব্যাপী এক সাম্প্রতিক সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে যে এ পর্যন্ত সার বিশ্বে 2,57,600  জনেরও বেশি আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে এবংবা মারা গিয়েছে 1,78,800  জনেরও বেশি।

Published on: এপ্রি ২২, ২০২০ @ ১৮:২৫


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *