আজ ঐতিহ্যবাহী পানিহাটির দন্ড মহোৎসব, ৫০০ বছর অতিক্রান্ত এই উৎসবের পিছনে রয়েছে এই কাহিনি

দেশ ধর্ম বিদেশ রাজ্য
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

শ্রী নিত্যানন্দ প্রভু বলেন- ‘রঘুনাথ, তোমাকে শ্রী শ্রী নিত্যানন্দ-গৌরাঙ্গের ভক্তদের চিড়া-দধি ভোজন করাতে হবে। এটাই হল তোমার দন্ড।’

Published on: জুন ১৫, ২০১৯ @ ১৩:০৬

এসপিটি নিউজ, পানিহাটি, ১৫জুন: মহাপ্রভু শ্রীচৈতন্যের পার্ষদ রঘুনাথ দাস গোস্বামীকে শাস্তি দিয়েছিলেন নিত্যানন্দ প্রভু। সেই শাস্তি অনুসারে নিত্যানন্দ প্রভু কয়েক হাজার ভক্তকে চিড়া-দধি ভোজন করাতে রঘুনাথকে নির্দেশ দিয়েছিলেন। সেদিনের সেই শাস্তি পরবর্তীকালে হয়ে ওঠে এক মহোৎসব। যা আজ ৫০০ বছর অতিক্রান্ত হয়েছে। ইসকন পানিহাটির গৌর-নিতাই গত পাঁচদিন ধরে চলছে এই উৎসব। আজ তার মূল অনুষ্ঠান।মায়াপুর ইসকনের জন সংযোগ আধিকারিক রসিক গৌরাঙ্গ দাস জানালেন সেদিনের সেই অবিস্মরণীয় কাহিনি। আসুন তাহলে তাঁর মুখ দিয়েই শুনি।

শ্রী নিত্যানন্দ প্রভু রঘুনাথকে কেন দিয়েছিলেন এই দন্ড

“আজ থেকে ৫০০ বছর আগের কাহিনি। দিনটি ছিল আজকের দিন। ১৫ই জুন। হুগলি জেলার অন্তর্গত শ্রীকৃষ্ণপুরের জমিদার শ্রীগোবর্ধন মজুমদার। যার সেইসময়ে মাসিক আয় ছিল বিশ লক্ষ স্বর্ণ মুদ্রা। তাঁর একমাত্র পুত্র হলেন শ্রীচৈতন্য পার্ষদ রঘুনাথদাস গোস্বামী।সব ঠিক ঠাকই চলছিল। কিন্তু আচমকা একদিন ঘটে গেল সেই অনভিপ্রেত ঘটনা। শ্রী নিত্যানন্দ প্রভুর আশীর্বাদ না নিয়ে রঘুনাথ সেদিন শ্রী চৈতন্য মহাপ্রভুর কৃপাশীষ লাভ করার চেষ্টা করেছিলেন। এ কথা জানা মাত্রই বিরাগভাজন হন তিনি নিত্যানন্দ প্রভুর। তিনি রঘুনাথকে এজন্য শাস্তি দেবার সিদ্ধান্ত নেন। রঘুনাথকে জানিয়ে দেন- তোমাকে শাস্তি ভোগ করতে হবে। প্রস্তুত হও। রঘুনাথ হাসি মুখে নত মস্তকে শাস্তি মাথা পেতে নেন। তখন শ্রী নিত্যানন্দ প্রভু বলেন- ‘রঘুনাথ, তোমাকে শ্রী শ্রী নিত্যানন্দ-গৌরাঙ্গের ভক্তদের চিড়া-দধি ভোজন করাতে হবে। এটাই হল তোমার দন্ড। আনন্দের সঙ্গে রঘুনাথ সেদিন এই দন্ড গ্রহণ করেছিলেন।”

দন্ড মহোৎসবে হাজির হয়েছিল মহাপ্রভুর দিব্য স্বরূপ

এরপর যে ঘটনা ঘটেছিল তা আজও স্মরণীয় হয়ে আছে মহাপ্রভু ভক্তদের কাছে। সে কথা বলছিলেন মায়াপুর ইসকনের জন সংযোগ আধিকারিক রসিক গৌরাঙ্গ দাস। ” সেদিন শ্রীচৈতন্য মহাপ্রভু সন্ন্যাসীবেশে পুরীধামে অবস্থান করলেও নিত্যানন্দ প্রভুর আহ্বানে এই অপ্রাকৃত মহোৎসবে তাঁর দিব্য স্বরূপ হাজির হয়েছিল। সেই স্বরূপে তিনি শ্রী নিত্যানন্দ প্রভুর শ্রীহস্ত থেকে ভোগ গ্রহণ করেছিলেন পানিহাটিতে। দিনটি ছিল আজকের দিন। ১৫ই জুন। রঘুনাথ হাজার হাজার ভক্তকে নিজের হাতে চিড়া-দধি প্রসাদ বিতরণ করেছিলান। কয়েকজন পার্ষদ ছাড়া শ্রীচৈতন্য মহাপ্রভুর এই দিব্যলীলা অন্যরা দর্শনের সৌভাগ্য লাভ করেত পারেননি।”

আজ এই মহোৎসব ছড়িয়ে পড়েছে গোটা বিশ্বে

মায়াপুর প্রভুপাদ ঘাটেও আজ এই উৎসব পালিত হচ্ছে। এই উৎসব স্তিমিত করে দেয় হিংসা-দ্বেষ এর বাতাবরণকে, সকল্কে আবদ্ধ করে দেয় শ্রীচৈতন্য মহাপ্রভুর প্রেম রজ্জুতে। দেশ-বিদেশের হাজার হাজার ভক্তবৃন্দের আগমনে বহুমানুষের মিলনক্ষেত্র মিলনমেলায় পরিণত হয় মহাপ্রভুর পদধূলি ধন্য তীর্থক্ষেত্র শ্রীধাম মায়াপুর। শুধু মায়াপুর নয় সারা বিশ্ব এমনকী আমেরিকার আটলান্টা শাখা কেন্দ্রেও আজ পালিত হচ্ছে এই চিড়া-দধি উৎসব। জানালেন জন সংযোগ আধিকারিক।

Published on: জুন ১৫, ২০১৯ @ ১৩:০৬


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *