উত্তরাখণ্ড পর্যটনঃ রেকর্ড তীর্থযাত্রী চারধামে, প্রথম দেড় মাসেই ২৫ লক্ষ পার করে দিয়েছে

Main কোভিড-১৯ দেশ ভ্রমণ রাজ্য
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Published on: জুলা ৪, ২০২২ @ ১২:৪৮
Reporter: Aniruddha Pal

এসপিটি নিউজ, কলকাতা, ৪ জুলাই: করোনা মহামারীর পর দেশের অভ্যন্তরের পর্যটনের শ্রীবৃদ্ধি হয়েছে। এর মধ্যে যে রাজ্যগুলিতে সবচেয়ে বেশি শ্রীবৃদ্ধি হয়েছে তার মধ্যে প্রথম সারিতে আছে উত্তরাখণ্ড। দেবভূমি নামে খ্যাত উত্তরাখণ্ডে চারধাম যাত্রায় সবচেয়ে বেশি মানুষের পদার্পন হয়। টানা দুই বছরের কঠর বিধিনিষেধের পর এবার জনস্রোত বইতে শুরু করে দিয়েছে দেবভূমি উত্তরাখণ্ডের চারধাম যাত্রায়। সম্প্রতি কলকাতায় ভ্রমণ ও পর্যটন বাণিজ্যের এক প্রদর্শনীতে অংশ নিতে এসে উত্তরাখণ্ড পর্যটনের এক আধিকারিক সংবাদ প্রভাকর টাইমস-কে এক এক্সক্লুসিভ সাক্ষাৎকারে জানালেন যে এবার চারধাম যাত্রায় ব্যাপক সাড়া মিলেছে। ইতিমধ্যেই যাত্রা শুরু প্রথম দেড় মাসেই তীর্থযাত্রীর সংখ্যা ২৫ লক্ষা পার করে দিয়েছে। যা সত্যিই এক রেকর্ড।

এসপিটি –কে উত্তরাখণ্ড পর্যটনের বর্তমান পরিস্থিতি জানালেন আধিকারিক

এসপিটি মুখোমুখি হয়েছিল উত্তরাখণ্ড ট্যুরিজম ডিরেক্টরেটের এক সিনিয়র রিসার্চ অফিসারের(এসআরও) সঙ্গে।তাঁর কাছে প্রশ্ন রাখা হয়েছিল যে করোনা মহামারীর পর পর্যটনের শ্রীবৃদ্ধি কেমন হয়েছে। পর্যটকের আধিক্য কতটা। উত্তরাখণ্ড সরকার পর্যটকদের জন্য বিশেষ কোনও সুবিধা রাখছে কি না। এসব প্রশ্নের জবাবে এসআরও এস  এস সামন্ত এসপিটি-কে বলেন-  “করোনা মহামারির পর শুধু উত্তরাখণ্ডই নয় সারা দেশেই পর্যটনের শ্রীবৃদ্ধি হয়েছে। উত্তরাখণ্ডে পর্যটন বাণিজ্য বেশ ভালো হয়েছে। এ বিষয়ে আপনাকে আমি একটা উদাহরণ দিতে চাই- উত্তরাখণ্ডে গত বছর যে চারধাম যাত্রা ছিল তাতে বিধিনিষেধের পর ৩ লক্ষ মানুষ এসেছিল গোটা সিজনে অর্থাৎ ২০২১ সালে। আর এবার যাত্রা শুরুর মাত্র দেড় মাসেই ২৫ লক্ষ পার করে দিয়েছি। তাহলে আপনি বুঝে নিন কিভাবে পর্যটকদের উৎসাহ বাড়ছে এবং মানুষ কত স্বতঃস্ফূর্তভাবে চারধাম যাত্রা করছে।”

হোটেল ৭৫ থেকে ৯০ শতাংশ বুকিং সম্পূর্ণ

“শুধু চার ধাম যাত্রাই নয় মুসৌরি, নৈনিতাল, কৌশানি, আলমোড়া, বাগেশ্বর, দেরাদুন, হরিদ্বার সব জায়গায় হোটেল ৭৫ থেকে ৯০ শতাংশ বুকিং সম্পূর্ণ। জায়গা দেওয়া যাচ্ছে না। পুজোর ছুটির বিষয়ে তো এখনই কিছু বলতে পারছি না। কিন্তু এখনও পর্যন্ত যে ধারা চলছে তাতে ৮০-৯০ শতাংশ বুকিং হয়ে গিয়েছে। এই মুহূর্তে পর্যটকের চাপ খুব ভালো।” যোগ করেন তিনি।

এসআরও বলেন- ঠিক এই কারণে অর্থাৎ এত বিশাল সংখ্যক মানুষের জন্যই আমরা চারধাম যাত্রায় রেস্ট্রিকশন করেছি।তাই আমরা চারধাম যাত্রার ক্ষেত্রে তীর্থযাত্রীদের সংখ্যা বেধে দিয়েছি। এখন সীমিত সংখ্যকই যেতে পারবে। সীমিত সংখ্যকই পার্কিং করতে পারবে। বিশেষ করে এখন বর্ষার মরশুম শুরু হয়ে গিয়েছে। পাহাড়ে ধস নামছে।

চারধাম যাত্রায় করা হয়েছে সীমাবদ্ধতা

“কেদারনাথ ধামে আমরা রেস্ট্রিকশন করে দিয়েছি ১২ হাজার। অর্থাৎ প্রতিদিন ১২ হাজার এবং অতিরিক্ত ২ হাজার তীর্থযাত্রী যাত্রা করতে পারবে কেদারনাথে।একইভাবে বদ্রীনাথে করেছি ১৫ হাজার ও অতিরিক্ত ২ হাজার, এভাবেই যমুনোত্রীতে করেছি ৪ হাজার এবং অতিরিক্ত ২ হাজার এবং গঙ্গোত্রীতে একইরকম করা হয়েছে।”

অনলাইনে রেজিস্ট্রেশন না করলেও থাকছে চারধাম যাত্রার সুযোগ

“এই অতিরিক্ত ২ হাজার হচ্ছে অনলাইনের বাইরে যারা থাকেন- অর্থাৎ এমন অনেকেই আছেন যারা অনলাইনে অভ্যস্ত নন। বিষয়টা একটু খুলে বলে নেওয়া দরকার। চারধাম যাত্রার জন্য অনলাইনে রেজিস্ট্রেশন করতে হয়। নিজের নাম চারধাম যাত্রায় সরকারিভাবে নিবন্ধিকৃত করার পরই যেতে পারবেন। এই রেজিস্ট্রেশন অনলাইনে করতে পারেন, মোবাইল অ্যাপসে করতে পারেন। এছাড়াও এমন অনেকেই আছেন যারা কম্পিউটার কিংবা মোবাইলে রেজিস্ট্রেশন করতে পারেন না। তারা এ বিষয়ে সম্পূর্ণ অজ্ঞ। তাই তাদের উৎসাহিত করতে আমরা বিভিন্ন জায়গায় – হরিদ্বার, হৃষিকেশ, ধামে আমরা ফিজিক্যাল কাউন্টারও খুলেছি। তাই এমন অনেক তীর্থযাত্রী আছেন যারা বিনা রেজিস্ট্রেশনে চলে এসেছেন। এখন তারা যদি হৃষিকেশ চলে আসে তাহলে তাদের জন্য কিছু করতে হবে। তাই তাদের আমরা এসব জায়গা থেকে রেজিস্ট্রেশন করিয়ে এক-দুই হাজার করে পাঠাতে পারি।” বলেন এসআরও ।

যদিও এখন এসব সমাধান হয়ে গিয়েছে। আসলে যখন পিক সিজন ছিল অর্থাৎ মে-জুন মাসে। এখন যে গতিতে এগোচ্ছে তাতে আমরা আশা করছি চারধামে এ বছর ৪৫ লক্ষ পর্যটক হয়ে যাবে।বলেন ওই আধিকারিক।

চারধাম যাত্রায় কোন রাজ্য কোন স্থানে

চারধাম যাত্রায় সব থেকে বেশি যায় কোন রাজ্য থকে জানতে চাওয়া হয়েছল সেই প্রশ্ন। জবাবে এসআরও এসএস সামন্ত বলেন- দেখুন, চারধামে যত মানুষ যায় তাতে একেবারে শীর্ষে আছে মহারাষ্ট্র, দুই নম্বরে গুজরাট এবং তিনে আছে বাংলা। যে সমস্ত পর্যটক এখনও পর্যন্ত এসেছে তাতে পরিসংখ্যান এমনটাই বলছে। এক আর দুই নম্বরে সব সময়ই মহারাষ্ট্র কিংবা গুজরাট থাকে। ওই রাজ্য থেকেই বেশি মানুষ চার ধাম যাত্রা করে থাকে। কখনও মহারাষ্ট্র তো কখনও গুজরাট থাকে এক নম্বরে। কিন্তু এরপর বাংলা, রাজস্থান, মধ্যপ্রদেশও থাকে তালিকায়।

Published on: জুলা ৪, ২০২২ @ ১২:৪৮


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •