জোড়া ফুল সরিয়ে পদ্মফুলকেই হাতে তুলে নিল জঙ্গলমহলের বহু গ্রাম, মাথায় হাত তৃণমূলের নেতাদের

রাজ্য
শেয়ার করুন

সংবাদদাতা- বাপ্পা মণ্ডল                                                   ছবি-রামপ্রসাদ সাউ

Published on: মে ১৭, ২০১৮ @ ২২:৫০

এসপিটি নিউজ, ঝাড়গ্রাম, ১৭মেঃ তৃণমূল কংগ্রেসের কাছে জঙ্গলমহল একটা আলাদা জায়গা। দলের সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এই জঙ্গলমহলকে নিয়ে স্বপ্ন দেখেন। এখানকার ছেলে-মেয়েরা একদিন বিশ্ব জয় করবে। বাংলার সম্মান উঁচুতে তুলে ধরবে এমন আরও কত কী! কিন্তু ভোটের ফল বেরোনোর পর জঙ্গলমহল দেখিয়ে দিল তারা চলে তাদের মতো করে। অর্থাৎ সেখানকার বহু গ্রামেই ফুটল পদ্মফুল। এতদিনের যাদের হাতে ছিল ঘাসফুল তারা এবার হাতে তুলে নিল পদ্মফুল। মন্ত্রী চূড়ামণি মাহাতো, দলের সাংসদ মানস ভুইয়ার নিজের পঞ্চায়েত এলাকায় হারতে হয়েছে তৃণমূল কংগ্রেসকে।এমন হাল দেখে এখন মাথায় হাত পড়েছে জঙ্গলমহলের তৃণমূলের নেতাদের। কি জবাব দেবেন তারা এবার দলের সুপ্রিমোকে!

আর তারই জেরে ঝাড়গ্রামের ৭৯টি গ্রাম পঞ্চায়েতের মধ্যে ২৪টি বিজেপি ছিনিয়ে নিল তৃণমূলের কাছ থেকে। যেখানে একটি গ্রাম পঞ্চায়েতও এবার জোটেনি সিপিএম-কংগ্রেসের। শুধু তাই নয় বিজেপি ছিনিয়ে নিল তৃণমূলের কাছ থেকে সাঁকরাইল ও গোপীবল্লভপুর-১ পঞ্চায়েত সমিতিও। বিশেষ করে রাজ্যের মন্ত্রী চূড়ামণি মাহাতোর নিজের এলাকা সাঁকরাইল পঞ্চায়েত সমিতি আর তাঁর নিজের গ্রাম পঞ্চায়েত যেভাবে বিজেপি ছিনিয়ে নিল তা কিন্তু মুখ্যমন্ত্রীর কাছেও বেশ চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়াল। ঝাড়গ্রাম জেলায় ৩৩০টি আসনে বিজেপি পদ্ম ফুটিয়ে ২০১৯ এর লোকসভা আসনের জন্য তৃণমূলকে কড়া বার্তা দিয়ে রাখল বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

ঝাড়গ্রামের মতো পশ্চিম মেদিনীপুর জেলাতেও কিন্তু তৃণমূল কংগ্রেসকে কড়া বার্তা দিয়েছে বিজেপি। সেখানেও এবার তারা কেশিয়াড়ি পঞ্চায়েত সমিতি দখল করে নিয়েছে। কেশিয়াড়ি, সাঁকরাইল ও গোপীবল্লভপুর-১ পঞ্চায়েত সমিতি তৃণমূলের হাতছাড়া হওয়ায় শাসক দলের অন্দরে কিন্তু চাপা উদ্বেগ বিরাজ করতে শুরু করেছে। যেভাবে দলের অন্দরে গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে তা যদি অবিলম্বে ঠিক না করতে পারে আর দলের নেতাদের চাহিদা যদি না কমাতে পারে তাহলে কিন্তু ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচন শাসক দলের কাছে আরও ভয়াবহ আকার নেবে বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

এসবের মধ্যে কামাল করে দিয়েছে পুরনো মামলায় জেলে থাকা বিজেপির এক প্রার্থী। যিনি গড়বেতা-৩ পঞ্চায়েত সমিতিতে বিজেপির হয়ে দাঁড়িয়ে ছিলেন। তৃণমুল কংগ্রেসের পঞ্চায়েত সমিতির প্রার্থী আরাবুল ইসলাম যেভাবে জেলে বসেই জিতে গেছেন বিজেপির এই প্রার্থীও জেলের ভিতরে থেকেই জয়ের খবর পান। আর আজই তিনি জেল থেকে জামিনে ছাড়া পান। গৌতম কৌরী নামে জয়ী ঐ বিজেপি প্রার্থী বলেন, তৃণমূল কংগ্রেস সন্ত্রাস করেও তাঁর জয় আটকাতে পারল না।এটা মানুষের জয়।

Published on: মে ১৭, ২০১৮ @ ২২:৫০

 

 

 


শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

18 − 17 =