ভারত-বাংলাদেশ বিমান চালুর খবর নিশ্চিত হতেই আশার আলো দেখতে শুরু করেছেন ফ্রিস্কুল স্ট্রিটের ব্যবসায়ীরা

Main দেশ বাংলাদেশ ভ্রমণ রাজ্য
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Published on: সেপ্টে ৩, ২০২১ @ ১১:৫৯
Reporter:Aniruddha Pal

এসপিটি নিউজ, কলকাতা, ৩ আগস্ট:   দুশ্চিন্তার মেঘ কেটে গিয়েছে। এখন আশার আলো দেখতে শুরু করেছেন কলকাতায় ফ্রিস্কুল স্ট্রিটের ব্যবসায়ীরা।কারণ এখানকার ব্যবসায়ীরা অনেকাংশেই নির্ভরশীল বাংলাদেশি পর্যটকদের উপর। গত চার মাস ধরে দুই দেশের বিমান পরিষেবা বন্ধ থাকার পর অবশেষে আগামিকাল অর্থাৎ ৪ সেপ্টেম্বর থেকে আবার চালু হতে চলেছে সেই পরিষেবা। তাই স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলছেন তারা।

ফ্রিস্কুল স্ট্রিট মার্চেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মনতোষ সাহা সংবাদ প্রভাকর টাইমসকে একান্ত সাক্ষাৎকারে জানান, “অবশেষে যে দুই দেশের মধ্যে বিমান পরিষেবা চালু হতে চলেছে এটাই বড় ব্যাপার।কারণ, আমাদের ফ্রিস্কুল স্ট্রিটে ২০০-উপর হোটেল, রেস্টুরেন্ট থেকে শুরু করে মানি এক্সচেঞ্জ কাউন্টার আছে। এখানে মূলত বাংলাদেশিরা এসে ওঠেন। কিন্তু গত চার মাস ধরে লকডাউন ধরে দুই দেশের মধ্যে বিমান পরিষেবা বন্ধ থাকায় তাদের আসা-যাওয়া বন্ধ ছিল। ফলে আমাদের হোটেল, রেস্টুরেন্ট থেকে শুরু করে সমস্ত দোকানপাট বড় ধরনের ক্ষতির মুখোমুখি হয়ে আসছিল। আমাদের রাজ্যে লকডাউন উঠে এলেও আমরা কিন্তু সেই লকডাউনেই পড়েছিলাম। যাক, তাহলে বিমান চলাচল শুরু হলে আবার মানুষজন আসতে শুরু করবেন, এটাই আমাদের আশার আলো দেখাচ্ছে।”

মনতোষবাবু বলেন- “গত চার মাস ধরে তারা এখানকার সমস্ত ব্যবসায়ী বিরাট আর্থিক ক্ষতির শিকার হয়েছেন। আমার নিজেরই রয়েছে একাধিক ব্যবসা। সনই এই ফ্রিস্কুল স্ট্রিটে। যার মধ্যে রেস্টুরেন্ট, হোটেল, মানি এক্সচেঞ্জ, বার থেকে শুরু করে সবই আজ বন্ধের মুখে এসে দাঁড়িয়েছে। বহু কর্মীকে বাড়ি পাঠিয়ে দিতে বাধ্য হয়েছি। তবে বিমান পরিষেবা চালু হওয়ায় আবার তাদের ডাকা হচ্ছে।”

২ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ সিভিল এভিয়েশন অথরিটি এক চিঠি দিয়ে জানিয়ে দেয় যে তারা ভারতের সিদ্ধান্তকে গ্রহণ করে ৪ সেপ্টেম্বর থেকে বিমান চালু করতে একমত। সেই মতো ৪ তারিখ থেকেই আবার চালু হতে চলেছে দুই দেশের মধ্যে বিমান পরিষেবা।ক্রমবর্ধমান কোভিড -১৯ সংক্রমণের মধ্যে স্থগিত হওয়ার চার মাস পর দুই দেশের মধ্যে বিমান পুনরায় চালু করার পথ পরিষ্কার করে সিভিল এভিয়েশন অথরিটি অব বাংলাদেশ বা সিএএবি এই বিষয়ে একটি সার্কুলার জারি করেছে।বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, দুই দেশের মধ্যে নির্ধারিত আন্তর্জাতিক যাত্রীবাহী ফ্লাইট পুনরায় শুরু না হওয়া পর্যন্ত এয়ার বুদবুদ চুক্তি অব্যাহত থাকবে।

সিএএবি প্রাথমিকভাবে ভারতের বায়ুবাহী বিমানবাহিনীর দ্বারা এয়ার বুদবুদ অধীনে ভারতে সাতটি সাপ্তাহিক ফ্লাইট পরিচালনার ভারতের প্রস্তাব গ্রহণ করেছে।

যদিও, সিএএবি প্রস্তাব দিয়েছে যে ভারতের বিবেচনার জন্য সাপ্তাহিক ১০টি ফ্লাইট বরাদ্দ।বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী, বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স ঢাকা-কলকাতা-ঢাকা রুটে দু’টি এবং ঢাকা-দিল্লি-ঢাকা রুটে প্রতি সপ্তাহে তিনটি উড়ান পরিচালনা করবে এবং ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স ঢাকা-চেন্নাই-ঢাকা রুটে তিনটি এবং ঢাকা-কলকাতা-ঢাকা উড়ান পরিচালনা করবে।এছাড়া নোভো এয়ার ঢাকা-পয়েন্ট ইন ইন্ডিয়া-ঢাকা রুটে প্রতি সপ্তাহে একটি উড়ান পরিচালনা করবে।

Published on: সেপ্টে ৩, ২০২১ @ ১১:৫৯


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •