পবিত্র শহর মায়াপুরে ‘প্রভুপাদ ঘাট’নির্মাণ করবে নমামি গঙ্গে, সময় লাগবে দু’বছর

Main দেশ ধর্ম ভ্রমণ রাজ্য
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সারা বিশ্ব থেকে ১ কোটি তীর্থযাত্রী যারা প্রতি বছর এই তীর্থস্থানে ঘাট থেকে উপকৃত হন

Published on: মে ১২, ২০২২ @ ১০:২১
Reporter: Aniruddha Pal

এসপিটি নিউজ, কলকাতা, ১২ মে: আরও এক ঐতিহাসিক মুহূর্তের সাক্ষী হতে চলেছে মায়াপুর। শ্রী চৈতন্য মহাপ্রভুর জন্মস্থান মায়াপুরকে সাজিয়ে তুলে প্রতিষ্ঠা করেছিলেন সেই শ্রীল প্রভুপাদের নামাঙ্কিত গঙ্গার ঘাট নির্মাণ হতে চলেছে। ভারত সরকারের বিশেষ এক প্রকল্পের আওতায় অর্থানুকূল্যে মায়াপুরে ‘প্রভুপাদ ঘাট’ নির্মাণ করবে নমামি গঙ্গে। আগামিকাল ভারত সরকার তার ন্যাশনাল মিশন ফর ক্লিন গঙ্গা (এনএমসিজি)-এর মাধ্যমে মায়াপুর ধামের পবিত্র তীর্থস্থান শহরে ‘প্রভুপাদ ঘাট’ নির্মাণের কাজশুরু করবে ভূমিপুজো পালনের মধ্য দিয়ে। সেই ঘাট নির্মাণের ভূমি পুজো অনুষ্ঠিত হতে চলেছে। এনএমসিজি এনএমসিজি-এর মহাপরিচালক, জি অশোক কুমার, প্রধান অতিথি হিসাবে এই অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করবেন৷

প্রভুপাদ ঘাট নির্মাণে প্রয়োজনীয় তথ্য

এই ঘাটটি নির্মাণ করতে খরচ হবে ১৫.৩ কোটি টাকা। একটি সরকারি পিএসইউ দ্বারা প্রভুপাদ ঘাটটি ইঞ্জিনিয়ার্স প্রজেক্ট ইন্ডিয়া লিমিটেড নির্মাণ করবে । এটি সম্পূর্ণ হলে, এই ঘাটটি প্রায় ১০০টি দেশের প্রায় ১ কোটি তীর্থযাত্রী এবং দর্শনার্থীদের উপকৃত করবে যারা এই শহরের বাসিন্দাদের সাথে প্রতি বছর মায়াপুরে ভ্রমণ করেন।েই ঘাটটি নির্মাণে সময় লাগবে দু’বছর।

প্রাচীন সাংস্কৃতিক শহর মায়াপুর সম্পর্কে কিছু কথা

গঙ্গা নদীর তীরে অবস্থিত, মায়াপুর হল ১৫শতকের সাধু-অবতার শ্রী চৈতন্য মহাপ্রভুর জন্মস্থান, এটি গৌড়ীয়-বৈষ্ণব আন্দোলনের বাড়ি এবং ইসকনের বিশ্ব সদর দফতর যার প্রতিষ্ঠাতা-আচার্য শ্রীল প্রভুপাদ মায়াপুর তৈরি করেছিলেন। বিশ্বের অনেক অংশে একটি পরিবারের নাম।

ইসকন মায়াপুরের জেনারেল ম্যানেজার কৃষ্ণ বিজয় দাস জানান- “মায়াপুর একটি ঐতিহাসিক এবং গুরুত্বপূর্ণ তীর্থস্থান। ১৫ শতকে, এটিকে প্রাচ্যের অক্সফোর্ড বলা হত কারণ এটি শিক্ষার অন্যতম প্রধান কেন্দ্র ছিল। আজ, এটি গৌড়ীয়-বৈষ্ণব ভক্তি আন্দোলনের আবাসস্থল এবং গঙ্গায় দর্শন ও স্নানের জন্য এখানে আসা সমস্ত স্তরের লোকেদের আকর্ষণ করে। এখানে প্রথম পাবলিক ঘাট নির্মাণের এই উদ্যোগ নেওয়ার জন্য এবং শ্রীল প্রভুপাদের সম্মানে এর নামকরণ করার জন্য আমরা নমামিগঙ্গেকে ধন্যবাদ জানাই। এই বছর আমরা তার ১২৫তম জন্মবার্ষিকী উদযাপন করছি বলে এটি আরও বেশি বিশেষ।”

যেভাবে সাজানো হবে ঘাটটিকে

একেবারে আধুনিক সুবিধাপ্রাপ্ত করে গরে তোলা হবে ঘাটটিকে। যেখানে ভক্তরা তাদের তীর্থস্থান ভ্রমণের পূর্ণ আস্বাদন লাভ করতে পারবেন একই সঙ্গে মা গঙ্গার চরণ স্পর্শ করারা সৌভাগ্য লাভ করবেন। এজন্য সেখানে সব ব্যস্থা রাখা হয়েছে। বিভিন্ন জনসাধারণের সুযোগ-সুবিধা যেমন রেলিং রক্ষা, পুরুষ ও মহিলাদের জন্য চেঞ্জিং রুম, টয়লেট, পার্ক এবং বেঞ্চ প্রভুপাদ ঘাটের অংশ যা দর্শনার্থীদের ইতিবাচক অভিজ্ঞতার জন্য সাহায্য করবে। এটি সম্পূর্ণ করার জন্য আনুমানিক সময় লাগবে প্রায় ২৪ মাস।

গঙ্গা আরতি দেখা যাবে প্রভুপাদ ঘাটে

“যখন এটি সম্পন্ন হয়, যে ভক্তরা ঘাটে আসবেন তারা এখানেই মায়াপুরের সন্ধ্যা গঙ্গা আরতির সৌন্দর্য এবং দেবত্ব অনুভব করতে পারবেন যার জন্য আমাদের আগে বারাণসী বা ঋষিকেশ ভ্রমণ করতে হয়েছিল। আরতির পাশাপাশি, গঙ্গা দেবীর মহিমা এবং পরিবেশকে পরিষ্কার ও নিরাপদ রাখতে আমাদের ভূমিকা সম্পর্কে জনসাধারণকে শিক্ষিত করতে সাহায্য করার জন্য নদীর তীরে নিয়মিত অনুষ্ঠান যেমন গঙ্গা কথা এবং সেমিনার পরিচালনা করা হবে” যোগ করেছেন কৃষ্ণ বিজয় দাস।

Published on: মে ১২, ২০২২ @ ১০:২১


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •