আশ্বাস পেয়ে অনশন তুলে নিলেন সরকারি চিকিৎসক

রাজ্য স্বাস্থ্য ও বিজ্ঞান
শেয়ার করুন

Last Update-8.24am

এসপিটি নিউজ, জলপাইগুড়ি, ১৯ ডিসেম্বর : টানা ২৪ ঘন্টা অনশনের পরে মঙ্গলবার সন্ধ্যার পরে অনশন তুলে নিলের ডাক্তার কুমার অতনু।এদিন সন্ধ্যার পরে জলপাইগুড়ি জেলা তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি বিধায়ক সৌরভ চক্রবর্তীর বার্তা নিয়ে ডাক্তার অতনুর কাছে যান জেলা তৃণমুলের সহ সভাপতি গৌতম দাস।তাঁর দাবি-দাওয়া গুলি গুরুত্ব দিয়ে দেখা হবে এবং তাঁর পাশে থাকার আশ্বাস দেবার বার্তা দেবার পরেই তিনি অনশন তুলে নেন।

আসলে তিনি ধার নিয়ে পড়েন মহাবিপদে। টাকা পাওয়া তো দূরের কথা তাকে এখন চোরের অপবাদ শুনতে হয়েছে। এমনকী এক রোগীর মৃত্যুর ঘটনায় তার বিরুদ্ধে রুজু করা হয়েছে কঠোর আইনি ধারা।যা তিনি কোনভাবেই মেনে নিতে পারেননি ।একজন চিকিতসক হয়ে মানুষের সেবা করার পর যদি এভাবে অপমানিত হতে হয় তাহলে চিকিৎসকদের সম্মান কিছু থাকে? আর তাই এর প্রতিবাদে জলপাইগুড়ি জেলা হাসপাতালের চিকিৎসক কুমার অতনু শহরের রাস্তায় সোমবার রাত থেকে অনশন শুরু করেন। মঙ্গলবার জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক এসে তাঁর সঙ্গে কথা বলেন। কিন্তু তাকে অনশনের রাস্তা থেকে সরিয়ে আনতে পারেননি।পরে রাতে জেলা তৃণমূলের সভাপতি সৌরভ চক্রবর্তীর বার্তা নিয়ে সহ সভাপতি সেখানে পৌঁছে ঐ চিকিতসকের অনশন ভঙ্গ করান।

কি বনেছিলেন ডা. অতনু?

চিকিৎসা করতে গিয়ে কিছু হলেই ৩০৪ ধারায় ডাক্তারদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হচ্ছে।  আবার ডাক্তারদের বিভিন্ন সময় “চোর” অপবাদ দেওয়া হচ্ছে।এসব বন্ধ হওয়া দরকার।

স্থানীয় এক ওষুধের দোকানের ব্যবসায়ীকে ল্যাব তৈরির জন্য তিনি ১০ লক্ষ টাকা ধার দিয়েছিলেন। পরে যখন তিনি ওই ব্যবসায়ীর কাছে টাকা চাইতে যান তখন সে টাকা তো দেওয়া দূরের কথা উলটে হেনস্থা করেন। এমনকী, তাকে চোর অপবাদ দিতেও বাদ রাখেনি।এমনই অভিযোগ এনেছেন ডা. অতনু। চোর অপবাদ সহ্য করতে না পেরে তিনি আত্মহত্যাও করতে গেছিলেন।

ডাক্তার অতনুর পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে কোতয়ালী থানার পুলিশ ওই ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে জামিন অযোগ্য ধারায় মামলা দায়ের করে।কিন্তু পরবর্তিতে ওই ব্যবসায়ীকে জামিন দেয় জলপাইগুড়ি জেলা আদালত।

সম্প্রতি জলপাইগুড়ি শহরের একটি বেসরকারি নাসিং হোমে সিসিইউ-তে থাকা এক রোগীর মৃত্যুর ঘটনায় ওই নার্সিং হোমের মালিক পক্ষ সহ মোট ৫ জনের নামে ক্লিনিক্যাল এস্টাব্লিসমেন্ট অ্যাক্ট অনুসারে কোতয়ালী থানায় অভিযোগ দায়ের করে রোগীর পরিবার। অভিযোগ অনুসারে পুলিশ ৩০৪ ধারায় মামলা দায়ের করে। অভিযুক্তদের মধ্যে ডাক্তার অতনুর নাম ছিল।Last Update-8.24am


শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

75 − = 72