আরএসএস-এর পাল্টা এবার ‘জয় হিন্দ বাহিনী’, সঙ্গে ‘বঙ্গ জননী কমিটি’ গড়ার ডাক মমতার

দেশ রাজ্য লোকসভা ভোট 2019
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

  • নৈহাটি এলাকায় বুথ স্তর থেকে মেয়েদের নিয়ে গড়ে তোলা হবে ‘বঙ্গ জননী কমিটি’।

  • নেতাজীর ভাবধারায় ‘জয় হিন্দ বাহিনী’ গড়ে তোলার নির্দেশ মমতা বন্দ্যোপাধ্যেয়ের।

সংবাদদাতা- অনিরুদ্ধ পাল

Published on: মে ৩০, ২০১৯ @ ২৩:৩৭

এসপিটি নিউজ, নৈহাটি, ৩০মে: সন্ত্রাসের বদলা হিসেবে এলাকায় শান্তি ফেরাতে এবং বাংলার কৃষ্টি-সংস্কৃতিকে রক্ষা করতে, দলের নয়া প্রতিরোধ বাহিনী গড়ে তোলার ফরমান জারি করলেন তৃণমূল কংগ্রেস সুপ্রিমো মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।আজ নৈহাটি পুরসভার সামনে ঘর ছাড়াদের ঘরে ফেরানোর ধর্না মঞ্চে দাঁড়িয়ে মমতা জানিয়ে দেন ওদের যদি আরএসএস থাকে তবে আমাদেরও এখন থেকে প্রতি ব্লকে ব্লকে গড়ে তোলা হবে ‘জয় হিন্দ বাহিনী’। আর মেয়েদের নিয়ে গড়ে তোলা হবে ‘বঙ্গ জননী কমিটি’।

সন্ত্রাসের আবহে নৈহাটি

২৩শে মে লোকসভা ভোটের ফল প্রকাশের পর থেকে নৈহাটি পুসভা এলাকা জুড়ে রীতিমতো সন্ত্রাসের বাতাবরন তৈরি হয়েছে এই অভিযোগ তোলে তৃণমূল কংগ্রেস। নৈহাটি এলাকার প্রায় ৪০টি পরিবার এলাকা ছাড়া হয়। যারা কলকাতায় গিয়ে আশ্রয় নেয়। এমনকী নৈহাটির বাইরে থাওকতে বাধ্য হন পুরপ্রধান অশোক চট্টোপাধ্যায়। তৃণমূলের অভিযোগ, বিজেপির গুন্ডাবাহিনী এই সন্ত্রাস চালাচ্ছে গোটা নৈহাটি এলাকা জুড়ে। নৈহাটির রাজনৈতিক ইতিহাসে যা কোনওদিন ঘটেনি তাও নাকি এই ক’দিনে ঘটে গিয়েছে। তৃণমূলের পার্টি অফিস পর্যন্ত দখল করে নিয়েছে বিজেপি। পুরসভার সামনের পার্টি অফিস দখল করতে গিয়ে হামলাকারীরা ঋষি বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের ছবি পর্যন্ত নষ্ট করে দিয়ে গিয়েছে। বহু এলাকায় মেয়েদের শ্লীলতাহানি পর্যন্ত করেছে বিজেপির হামলাকারীরা।এমনই অভিযোগ তোলে তৃণমূল।

মেয়েদের নিয়ে ‘বঙ্গ জননী কমিটি’

তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এই সন্ত্রাসের কথা স্মরণ করে হুঙ্কার দেন- সন্ত্রাসের বদলা আমরা নেব, তবে তা হবে শান্তির পথ ধরেই। আর এজন্য নৈহাটি এলাকায় বুথ স্তর থেকে মেয়েদের নিয়ে গড়ে তোলা হবে ‘বঙ্গ জননী কমিটি’। যারা বিজেপির হামলা প্রতিরোধ করবে। এলাকায় মা-বোনেদের রক্ষা করবে। প্রতিরোধ করবে। তিনি আরও বলেন- এখন তারা যে কোনও শাড়ি পরে কাজ করতে পারবেন তবে তাদের একটা ড্রেস কোড হবে। লাল আর সবুজ পাড়ের শাড়ি। এটাই হবে তাদের ড্রেস কোড। এলাকায় মেয়েদের বিরুদ্ধে কেউ হামলা করতে এলে তাদের সম্মান হানি করতে এলে তারা তা প্রতিরোধ করবে।

ছেলেদের নিয়ে ‘জয় হিন্দ বাহিনী’

একইরকমভাবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ছেলেদেরকে নির্দেশ দেন – তোমরা ব্লক স্তর থেকে এখন ‘জয় হিন্দ বাহিনী’ গড়ে তোলো। নেতাজীর ভাবধারায় এই বাহিনী কাজ করবে। এদের উদ্দেশ্য হবে বাংলার সংস্কৃতি আর কৃষ্টিকে রক্ষা করা। ভিন রাজ্য থেকে কিছু দুষ্কৃতি -গুন্ডাকে নিয়ে এসে এখানে বিজেপি বাংলার মানুষকেই অপমান করছে। বাংলা থেকেই বাঙালি পরিবারগুলিকে ঘর ছাড়া করছে। ওদের এত সাহস। আমি এসব বরদাস্ত করবো না। এখন থেকে ব্লক স্তরে ‘জয় হিন্দ বাহিনী’ ওদের এই সন্ত্রাস রুখবে। আর এলাকায় শান্তি প্রতিষ্ঠা করবে। একই সঙ্গে মমতা এই বাহিনীর সদস্যদের ড্রেস কোডও ঠিক করে দেন। সাদা পায়জামা আর হলুদ পাঞ্জাবি হবে এদের মূল পোশাক।

Published on: মে ৩০, ২০১৯ @ ২৩:৩৭

 


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *