হিন্দুস্তানি ওয়েঃ টোকিও অলিম্পিকে টিম ইন্ডিয়ার জন্য এ আর রহমান, অনন্যার অনবদ্য প্রয়াস

খেলা বিনোদন
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Published on: জুলা ১৪, ২০২১ @ ২০:৪১
Reporter: Aniruddha Pal

এসপিটি নিউজ:  ভারতীয় দলকে উদ্বুদ্ধ করতে এর আগেও একাধিক হিট গানে সুর দিয়েছেন কিংবদন্তি সঙ্গীত পরিচালক এ আর রহমান। এবারেও টোকিও অলিম্পিকে টিম ইন্ডিয়ার জন্য গানে সুর দিতে এগিয়ে এসেছেন তিনি। হিন্দুস্তানি ওয়ে- গানটিতে প্রাণবন্ত সুর দিয়ে ফের তিনি দেশবাসীকে আরও এক অসাধারণ গান উপহার দিয়েছেন। আর এই গানটি দুর্দান্ত গেয়ে চমকে দিয়েছেন অনন্যা বিড়লা। আজ কেন্দ্রীয় ক্রীড়ামন্ত্রী অনুরাগ ঠাকুর ‘হিন্দুস্তানি ওয়ে’ গানটির আনুষ্ঠানিক সূচনা করেন।

ইংরাজি কণ্ঠস্বর দ্বারা মিশ্রিত একটি হিন্দি ট্র্যাক হিসাবে গাওয়া হয়েছে ‘হিন্দুস্তানী ওয়ে’, যা ‘ইন্ডিয়ান ওয়ে’ তে ঐক্য ও আশার বিষয়কে ইঙ্গিত করে। গানটি লিখেছেন অনন্যা। তিনি এই গানে কণ্ঠও দিয়েছেন। তবে গানটিতে সুরকার ও প্রযোজক হিসাবে কাজ করেছেন এ আর রহমান।

“আমরা সবাই এই বিশেষ গানটি তৈরি করতে পেরে সত্যিই উচ্ছ্বসিত এবং আশা করি যে আমাদের ক্রীড়াবিদরা যখন শুনবেন তারা  হিন্দুস্তানি পথটি অনুধাবন করতে পারবেন, এই প্রকল্পে অনন্যার সাথে কাজ করে আনন্দিত হয়েছি …” অস্কার ও গ্র্যামি বিজয়ী এ আর রহমান এক বিবৃতিতে বলেছেন।

অনন্যা যা বলেছেন

নির্মিকা সিংহ ও শিশির সামন্তের সাথে এই গানের সহ-রচনাকার হিসাবে বিড়লা বলেছেন, ভারতীয় অলিম্পিক দলকে উত্সাহিত করার জন্য কলম পাওয়া এবং একটি গান গাওয়া এটা “সত্যি সম্মানজনক”। এখানেই না থেমে অনন্যা বলেন- “এইরকম চ্যালেঞ্জিং বছরের মুখোমুখি ভারতীয় অলিম্পিক দলের অধ্যাবসায় ও ধৈর্য্য অনুপ্রেরণাজনক। এমন একটি মর্যাদাপূর্ণ প্রকল্পে আমার রোল মডেল, এ আর স্যারের সঙ্গে সহযোগিতা করার সুযোগ পেলাম তা সত্যিই অসাধারণ। আমরা এখানে হিন্দুস্তানি ওয়ে উল্লাস করছি!”

গানের ভিডিওটি কি আছে

গানের মিউজিক ভিডিওটি পরিচালনা করেছেন ড্যানি ম্যামিক এবং সাহান হাত্তাঙ্গারি। প্রযোজনা করেছে বিড়লার ব্যানার অ্যান্টিম্যাটার মিডিয়া প্রাইভেট লিমিটেড। ভিডিওটিতে বেশ কয়েকটি অলিম্পিকের ফুটেজ রয়েছে। যার মধ্যে আছে ১৯৯৬-র আটলান্টা অলিম্পিক, ২০০৪ সালের অ্যাথেন্স অলিম্পিক, ২০০২, ২০০৮ সালের বেজিং অলিম্পিক, ২০১৬-র রিও অলিম্পিক, ২০১২ সালের লন্ডন অলিম্পিক এবং এই বছরের অংশগ্রহণকারীদের একচেটিয়া প্রশিক্ষণের ফুটেজ।

ভারতীয় অলিম্পিক দলে এবার একশোরও বেশি প্রতিযোগী

ভারত থেকে একশোরও বেশি অ্যাথলিট অলিম্পিকের জন্য যোগ্যতা অর্জন করেছেন, যা কোভিড -১৯ মহামারীজনিত কারণে এক বছর পিছিয়ে দেওয়া হয়েছিল। কঠোর স্বাস্থ্য সুরক্ষা প্রোটোকলের মধ্যে এই অনুষ্ঠানটি 23 জুলাই শুরু হতে চলছে।উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের সময় হকি অধিনায়ক মনপ্রীত সিংহ এবং লন্ডন অলিম্পিকের ব্রোঞ্জ-পদকপ্রাপ্ত বক্সার মেরি কম ভারতের পতাকা বহন করবেন।শীর্ষ কুস্তিগীর বজরঙ্গ পুনিয়া ৮ আগস্ট সমাপ্তি অনুষ্ঠানের জন্য দেশের পতাকাবাহক হিসাবে মনোনীত হয়েছেন।

এবার জেনে নিন কে এই অনন্যা

অনন্যা বিড়লা খুব অল্প বয়সেই সংগীতের প্রতি আগ্রহ দেখিয়েছিলেন। তিনি এগারো বছর বয়সে সন্তুর বাজাতে শিখেছিলেন। তিনি স্নাতক ডিগ্রির জন্য অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে অর্থনীতি এবং পরিচালনা বিষয়ে পড়াশোনা করেন, তবে ডিগ্রি না শেষ করেই পড়া ছেড়ে দেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সময়েই, অনন্যা, ক্লাবে গান গাওয়া এবং গিটার বাজানো শুরু করেছিলেন। তিনি তাঁর নিজের সংগীত নিজেই লিখতে শুরু করেছিলেন। তাঁর প্রথম একক সঙ্গীত “লিভিন’ দ্য লাইফ” যা সহ-রচনা এবং প্রযোজনা করেছেন জিমবিয়েঞ্জ, যিনি এর আগে নেলি ফারতাডো, ভেরিল টোয়েডি এবং ডেমি লোভাটোর সহকর্মী ছিলেন। ফিলাডেলফিয়ার একটি স্টুডিওতে গানটির রেকর্ড ও প্রযোজিত হয়েছিল।ওলন্দাজ ডিজে আফরোজাকের করা “লিভিন’ দ্য লাইফ” এর একটি রিমিক্স পিএম:এএম রেকর্ডিংয়ের মাধ্যমে মুক্তি পায়। এর ফলে অনন্যা প্রথম ভারতীয় শিল্পী হিসাবে অসামান্য খ্যাতি অর্জন করেন, যার ফলে তাঁর সংগীত বিশ্বব্যাপী প্রচার পায়। জুন ২০১৭ পর্যন্ত ইউটিউবে এটির দর্শক হয়েছিল ১.৪ কোটিরও বেশি। তাঁর সংগীত ২০১৯ সালে সংগীত তালিকাগুলির শীর্ষে ছিল।তাঁর আরও একটি পরিচয় আছে – অনন্যা হলেন আদিত্য বিড়লা গ্রুপের চেয়ারম্যান কুমার মঙ্গলম বিড়লার কন্যা।

বিড়লা ১৭ বছর বয়সে স্বতন্ত্র মাইক্রোফিন প্রাইভেট লিমিটেড প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। সংগঠনটি গ্রামীণ ভারতে অবস্থিত মহিলা উদ্যোক্তাদের ক্ষুদ্রশিল্পের ঋণ দেয়। যেখানে সুদের হার দেশে সবচেয়ে কম তালিকাভুক্তের মধ্যে আছে।

Published on: জুলা ১৪, ২০২১ @ ২০:৪১


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •