নয়া ইতিহাস গড়ে REAL HERO অভিনন্দন ভর্তমান- তুলে ধরলেন ভারতের সম্মান, কিভাবে জানেন

দেশ
শেয়ার করুন

সংবাদদাতা-অনিরুদ্ধ পাল

Published on: ফেব্রু ২৮, ২০১৯ @ ২১:৩০

এসপিটি স্পেশালঃ   আমাদের দেশ বীর সেনাদের জন্ম দিয়েছে। অনেকেই দেখেছেন আবার অনেকের তাদের দেখার সৌভাগ্য হয়নি। তবে এখনকার ছেলেমেয়েদের মধ্যে কিন্তু এই বীর যোদ্ধাকে দেখার সুযোগ এসে গেল। ভারতের এই বীর যোদ্ধা হলেন ইন্ডিয়ান এয়ার ফোর্সের পাইলট উইং কম্যান্ডার অভিনন্দন ভর্তমান। যিনি শত্রু পক্ষের পিছনে ধাওয়া করার সময় নিজের প্রাণ নিয়ে ভাবেননি। ভাবেননি শত্রুর ডেরায় পৌঁছে গেলে তাঁকে কি ধরনের কঠিন পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে হবে। গ্রেফতার হওয়ার ভয়ে তিনি পিছিয়ে আসেননি।পাকিস্তানের মতো শত্রুপক্ষের মুখোমুখি দাঁড়িয়েও অবিচল থাকতে দেখা গেছে এই ভারতীয় বীর যোদ্ধাকে।

এই হল আমাদের ভারতীয় বীর যোদ্ধা। পাকিস্তান সেনাদের সামনে দাঁড়িয়েও তিনি দেশপ্রেম দেখিয়ে গেছেন।হার মানেননি। মাথা নত করেননি। পাকিস্তানি সেনার অফিসার তাঁকে বেশ কয়েকটি প্রশ্ন করেন। যার মধ্যে তিনটি প্রশ্নের ভিডিও আমাদের সামনে এসেছে। সেখানে তাঁকে

প্রথম প্রশ্ন করা হয়েছিল-

আপনি ভারতের কোন শহরে থাকেন?

অত্যন্ত স্বাভাবিক ভাবে শান্ত স্বরে অভিনন্দন জবাব দেন ভারতের দক্ষিনের শহরে। এর বেশি তিনি বলেননি।

দ্বিতীয় প্রশ্ন ছিল-

আপনি কোন ফাইটার প্লেন উড়াচ্ছিলেন?

এক্ষেত্রেও অভিনন্দনকে অত্যন্ত শান্ত-স্বাভাবিক দেখা গেছে। চায়ের কাপে চুমুক দিতে দিতে বলেছেন-এটা আমি জানাতে পারব না। আপনারা ওই প্লেনের ধ্বংসাবশেষ দেখে তো জানতেই পারবেন। এটা আমার মুখ দিয়ে নাই বা শুনলেন।

তৃতীয় প্রশ্ন ছিল-

আপনার লক্ষ্য কি ছিল?

এবারেও খুব স্বাভাবিকভাবেই অভিনন্দন বলেন-সরি, মেজর আমি আপনাদের সঙ্গে তা শেয়ার করতে পারব না।

ভাবুন একবার- এক ভারতীয় বীর যোদ্ধা পাকিস্তানের ডেরায় তাদের দাপুটে সেনা আধিকারিকদের মুখোমুখি দাঁড়িয়ে রয়েছেন। ভাবলেশহীন শান্ত সংযত আত্মবিশ্বাসী হয়ে তাদের একের পর এক প্রশ্নের জবাব দিয়ে গেছেন আমাদের এই বীর যোদ্ধা। কোনওভাবেই কিন্তু তাঁকে মাথা নত করতে পারেননি পাক অফিসাররা। এই হলেন আমাদের ভারত মাতার বীর সুপুত্র অভিনন্দন ভর্তমান।

এই বীর যোদ্ধা সম্পর্কে যত জানবেন ততই চমকে যাবেন। ২০১১ সালে ৩৪ বছরের অভিনন্দন এক ফুড ট্রাভেল শো-তে বলেছিলেন- “ব্যাড অ্যাটিচিউড” অর্থাৎ খারাপ মনোভাবই একজন ভালো যোদ্ধা তৈরি করে। গত বুধবার এয়ার ফোর্সের মিগ-২১ ভেঙে পড়ার পর অভিনন্দন পাকিস্তান সীমানায় আটকে পড়েন। নিজের ফাইটার জেটের সঙ্গে বিচ্ছিন্ন হওয়ার পর জমিতে পড়তেই পাকিস্তানি সেনা তাঁকে গ্রেফতার করে নেয়। এর পর তাঁর কয়েকটি ভিডিও প্রকাশ করা হয়। এই ভিডিওটিতে অভিনন্দনের চেহারায় কিন্তু এতটুকু ভয়ের চিহ্ন দেখা যায়নি। শত্রুর ডেরাতে দাঁড়িয়েও আমাদের বীর যোদ্ধা অভিনন্দন কিন্ত একেবারে স্বাভাবিক ছিলেন। এটাই আমাদের ভারতীয় সেনাদের এক বড় বৈশিষ্ট্য।

২০১১ সালে এনডিটিভির এক শো-এ অভিনন্দন নিজের অনুভবের কথা জানাতে চাওয়া হয়েছিল। বলা হয়েছিল তাঁকে যে ফাইটার পাইলটদের সবচেয়ে জরুরী হল টিমওয়ার্ক। এ কথা শোনামাত্রই সেদিন অভিনন্দন ফ্লাইট লেফটন্যান্টের পদে আসীন ছিলেন। তিনি বলেছিলেন- “আমি আমার সহকারী পাইলটদের উপর পুরো ভরসা করি। ঠিক তেমই তারাও আমার উপর পুরো ভরসা করেন। এটাই আমাদের খুব গুরুত্বপূর্ণ ট্রেনিং। একজন অপরজনের চোখে চোখ রেখে ভরসা করে। একে অপরজনের উপর ভরসা করা ছাড়া দ্বিতীয় কোনও রাস্তা আমরা দেখতে পাই না।”

কে এই অভিনন্দন

অভিনন্দন হলেন ভারতের এক রিটায়ার্ড এয়ার মার্শালের ছেলে। সিনহাকুট্টি ভর্তমান- যিনি ভারতের দক্ষিণের কোনও রাজ্যের বাসিন্দা। তিনি ভারতীয় বায়ুসেনার ইস্টার্ন এয়ার কম্যান্ড প্রধান হিসেবে কাজ করেছিলেন। অভিনন্দনের বাবা মণিরত্নমের ছবি ‘কাটরু বেল্যিদাই’তে এক কন্সালট্যান্টের দায়িত্ব সামলেছিলেন। এই ছবিটি কার্গিল যুদ্ধের উপর ভিত্তি করে তৈরি করা হয়েছিল। এই ছবিতে এক ভারতীয় পাইলটকে পাকিস্তান গ্রেফতার করেছিল বলে তা দেখানো হয়েছিল।

এক হিন্দি ওয়েবসাইট-এর সূত্র অনুসারে জানা গেছে- ২০০৪ সালে অভিনন্দন ভারতীয় বায়ুসেনায় যোগ দেন। তাঁর সার্ভিস নম্বর-২৭৯৮১। জেনে রাখুন উইং কম্যান্ডার অভিনন্দনের ভাইও কিন্তু এয়ার ফোর্সে আছেন। ১৯৮৩ সালের ২১শে জুন তামিলনাড়ুর তিরুপনামুরে জন্মগ্রহণ করেছিলান অভিনন্দন ভর্তমান। তাঁর দুই শিশু সন্তান আছে।

আজ পাকিস্তান তাঁকে বিনা শর্তেই ছেড়ে দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছে। এটা একজন ভারতীয় যোদ্ধা হিসেবে বিরাট গৌরবের। এ আমাদের ভারত মাতার বীর সন্তানের মস্ত বড় জয়।

Published on: ফেব্রু ২৮, ২০১৯ @ ২১:৩০


শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

64 + = 65