রাজস্থান পর্যটনঃ বিকানেরে ২০২২ সালের ক্যামেল ফেস্টিভ্যালে অংশ নেবে ১০টি দেশের ৪০০ শিল্পী

Main দেশ ভ্রমণ রাজ্য
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্প্রতি কলকাতায় রাজস্থান পর্যটন বিকাশ নিগমের অফিসে ভারপ্রাপ্ত আধিকারিক হিঙ্গলাজদন রত্নুর সঙ্গে দেখা করতে এসেছিলেন রাজস্থানের পর্যটন বিশেষজ্ঞ কৈলাস তেওয়ারি, যিনি রাজস্থানের লোকসংস্কৃতিকে বিশ্বের দরবারে পৌঁছে দেওয়ার কাজে নিরলস পরিশ্রম করে চলেছেন। আগামী বছর বিকানের ক্যামেল ফেস্টিভ্যাল নিয়েও সংবাদ প্রভাকর টাইমসকে তিনি জানালেন তাদের পরিকল্পনার কথা।
Published on: সেপ্টে ১৩, ২০২১ @ ১৯:২৮
Reporter: Aniruddha Pal

এসপিটি নিউজ, কলকাতা, ১৩ সেপ্টেম্বর:   বিকানেরের ক্যামেল ফেস্টিভ্যাল বিশ্ববিখ্যাত।সেই ক্যামেল ফেস্টিভ্যাল নিয়ে উৎসাহী বিকানেরের দুই ভূমিপুত্র – হিঙ্গলাজদন রত্নু, যিনি রাজস্থান পর্যটন বিকাশ নিগমের কলকাতার ভারপ্রাপ্ত আধিকারিক হিসাবে সাফল্যের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করে চলেছেন এবং অপরজন কৈলাস তেওয়ারি, যিনি রাজস্থানের একজন পর্যটন বিশেষজ্ঞ হিসাবে সারা বিশ্বে রাজস্থানের কলা ও সংস্কৃতিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার কাজে ব্রতী হয়েছেন। উভয়ের সাক্ষাৎ হয় গত সপ্তাহে কলকাতায়। সেখানে সংবাদ প্রভাকর টাইমসের পক্ষে উপস্থিত থাকার সৌভাগ্য হয়। সেখানেই পর্যটন বিশেষজ্ঞ কৈলাসজী জানালেন যে ২০২২ সালে বিকানেরে ক্যামেল ফেস্টিভ্যালে বিশ্বের ১০টি দেশের ৪০০ শিল্পী তাদের নিজস্ব কলা-সংস্কৃতি প্রদর্শন করবেন। এটাই হবে মুখ্য আকর্ষণ।

আরটিডিসি-র কলকাতার আধিকারিক হিঙ্গলাজদন রত্নু যা বললেন

কলকাতায় রাজস্থান পর্যটন বিকাশ নিগমের ভারপ্রাপ্ত আধিকারিক হিঙ্গলাজদন রত্নু জানালেন- বিকানেরের ক্যামেল ফেস্টিভ্যাল বিশ্ব বিখ্যাত। দেশ-বিদেশের বহু পর্যটক এই ফেস্টিভ্যালে অংশ নিতে আসেন। এবছর কোভিডের জন্য ফেস্টিভ্যাল পিছিয়ে গিয়েছে। তবে আমরা আশা করছি আগামী বছর ২০২২ সালে এই ক্যামেল ফেস্টিভ্যাল আবার তার আকর্ষণ বাড়িয়ে তুলবে। আর এই ফেস্টিভ্যালের পিছনে বিকানেরের যাদের ভূমিকা প্রশংসনীয় তাদের মধ্যে অগ্রগন্য হলেন আমাদের বন্ধু স্থানীয় ্পর্যটন বিশেষজ্ঞ কৈলাস তেওয়ারি। রাজস্থানী কলা-সংস্কৃতিকে যেভাবে তিনি বিশ্বের দরবারে পৌঁছে দিয়েছেন তা অতুলনীয়। আগামী বছরের পরিকল্পনা তো সত্যিই অসাধারণ।এখন সবটাই নির্ভর করছে পরিস্থিতির উপর।

ক্যামেল ফেস্টিভ্যালে’র মুখ্য আকর্ষণ

কৈলাস তেওয়ারি বলেন- “আমরা ক্যামেল ফেস্টিভ্যাল আয়োজন করি বিকানেরে। প্রতি বছরই আমরা এই ফেস্টিভ্যালকে আগে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করি। এই বছর আমরা যে পরিকল্পনা করেছিলাম কোভিডের জন্য তা পিছিয়ে গেছে। তবে পরিস্থিতি ঠিক থাকলে আমরা অবশ্যই ২০২২ সালের ক্যামেল ফেস্টিভ্যাল বিশ্বের ১০টি দেশের শিল্পীদের নিয়ে আসা নিশ্চিত করে ফেলেছি। এর সম্পূর্ণ খরচ রাজস্থান সরকার ও লোকাল যেসব স্পনসর্ড আছে তারা বহন করবে। ১০ দেশ থেকে কমপক্ষে ৪০০ শিল্পী এতে অংশ নেবে।”

কে এই কৈলাস তেওয়ারি

কৈলাস তেওয়ারি রাজস্থানের একজন প্রখ্যাত পর্যটন বিশেষজ্ঞ। তিনি রাজস্থানের কলা ও সংস্কৃতিকে বিশ্বের দরবারে পৌঁছে দেওয়ার কাজে ব্রতী হয়েছেন। তিনি জানালেন- “দীর্ঘদিন ধরে আমি ট্যুরিজমের সঙ্গে যুক্ত আছি। ১৯৯৯ সালে ক্যামেল ফেস্টিভ্যাল থেকে আমার পর্যটন শিল্পের সঙ্গে যোগাযোগ শুরু হয়েছিল। সেসময় অ্যাসিস্ট্যান্ট ডাইরেক্টর রাজেন্দ্র সিং শেখাওয়াত এই ফিল্ডে নিয়ে এসেছিলেন। সেদিন থেকে রাজস্থানের পর্যটন ও লোকনৃত্যকে জনপ্রিয় করে তোলার চেষ্টা করে চলেছি।”

কি ভূমিকা পালন করে আসছেন

“প্রতি বছর রাজস্থান থেকে একটি গ্রুপকে বিদেশে নিয়ে যাই, যারা ভারতের প্রতিনিধিত্ব করে। এই গ্রুপের নেতৃত্ব আমি দি। এই গ্রুপ একাধিক দেশে প্রদর্শন করেছে। আমাদের কলা ও সংস্কৃতি বিদেশে প্রতিষ্ঠা করেছি সেখানে আমরা প্রতি বছর গ্রুপ নিয়ে যাই। যেসব দেশে আমরা আমাদের কলা ও সংস্কৃতি প্রদর্শন করেছি সেগুলি হল- ফ্রান্স, ইতালি, স্পেন, স্লোভাকিয়া, বেলারুশ, চেক রিপাবলিক, স্লোভানিয়া, তাইওয়ান, জাপান, কোরিয়া, সুইডেন, মার্তিনি, বেলজিয়াম, সুইজারল্যান্ড এবং নেপাল। এই দেশগুলিতে আমরা আমাদেশের প্রতিনিধিত্ব করেছি।” বলেন কৈলাসজী।

“আমরা প্রথম ২০০৮ সালে এই যাত্রা শুরু করেছিলাম। সেই থেকে আমরা প্রতি বছর কোনও না কোনও দেশে যাত্রা করে থাকি। সেখানে কোনও বছরে এক, দুই অথবা তিনবার এই সফর হয়ে থাকে, আমরা ভারতের প্রতিনিধিত্ব করি রাজস্থানের পক্ষ থেকে।”

সম্মানিত হয়েছেন পর্যটন বিভাগ থেকে

কৈলাসজী বলেন- “ট্যুরিজম বিভাগ থেকে প্রশংসা পত্র মিলেছে।প্রতি বছরই এই প্রশস্তি পত্র পাই। আইসিসিআর-এর পক্ষে গ্রুপকে নেতৃত্ব দিয়ে থাকি। কিছু প্রাইভেট ফেস্টিভ্যাল হয়। সেখানেও আমাকে ডাকা হয়। রাজস্থানী যেসব শিল্পী আছে তাদের ওই ফেস্টিভ্যালে নিয়ে যাই। আমরা মূলত রাজস্থানী লোকনৃত্যের উপর জোর দিয়ে থাকি। আমরা গুজরাট, পাঞ্জাবে আমাদের গ্রুপকে নিয়ে যাই। কিন্তু আমাদের মূল ফোকাস হল রাজস্থান।”

বিকানেরের সঙ্গে টান দীর্ঘদিনের

বিকানের আমার জন্ম হয়েছে।গত ৪৭ বছর ধরে বিকানেরেই আছি। বিকানেরে ১৯৯৮ সাল থেকে পর্যটনের সঙ্গে যুক্ত আছি। ২৩ সাল হয়ে গেল।বলেন কৈলাসজী।

Published on: সেপ্টে ১৩, ২০২১ @ ১৯:২৮


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •