পাকিস্তানে ভূমিকম্পে ১ জনের মৃত্যু, আহত বহু, উত্তর ভারতেও পড়ল এর আঁচ

Main আবহাওয়া দেশ বিদেশ
শেয়ার করুন

পাকিস্তানের পাঞ্জাব প্রদেশের ঝিলামে 5.8 মাত্রার ভূমিকম্প অনুভূত হয়েছে।

এর কেন্দ্রটি মাটি থেকে 10 কিলোমিটার নীচে ছিল।

2015 সালের এপ্রিল-মে মাসে নেপাল ভূমিকম্পের কারণে প্রায় 8000 মানুষ মারা গিয়েছিলেন।

Published on: সেপ্টে ২৪, ২০১৯ @ ২০:৫৩ 

এসপিটি নিউজ ডেস্ক:  মঙ্গলবার পাকিস্তানের উত্তরাঞ্চলে ভূমিকম্পের কম্পন অনুভূত হয়। পাক আবহাওয়া দফতর সূত্রের খবর,  পাঞ্জাব প্রদেশের ঝিলামে 5.8 মাত্রার ভূমিকম্প অনুভূত হয়েছে। এর কেন্দ্রটি মাটি থেকে 10 কিলোমিটার নীচে ছিল। তবে, পাকমন্ত্রী ফাওয়াদ চৌধুরী বলেছেন, ভূমিকম্পের মাত্রা ছিল 1.1। পাকিস্তান-অধিকৃত কাশ্মীরের মিরপুরে (পিওকে) ভূমিকম্পের ফলে ৫০ জন আহত এবং এক ব্যক্তির মৃত্যুর খবর মিলেছে।

মিরপুরে প্রচুর ক্ষতি হয়েছে। পাক সংবাদ মাধ্যম সূত্রে খবর,  ভূমিকম্পের প্রথম কাঁপুনি অনুভূত হয়েছিল বেলা তিনটায়। তারপরে সন্ধ্যা 4: 21 থেকে 4:31 মিনিটের মধ্যে ভূমিকম্প হয়। এ কারণে এখানকার জমি ও রাস্তায় বড় ধরনের ফাটল দেখা দিয়েছে। গাড়ি, বাস ও অন্যান্য যানবাহন ধসে পড়ে। জম্মু ও কাশ্মীর ও দিল্লিসহ উত্তর ভারতের কয়েকটি রাজ্যেও ভূমিকম্পের প্রবণতা অনুভূত হয়েছিল।

মিরপুরের মসজিদে আহত নারী ও শিশুরাও ক্ষতির সম্মুখীন

একজন প্রত্যক্ষদর্শী জানিয়েছেন যে ভূমিকম্পের কারণে মানুষ ভবনগুলি থেকে বেরিয়ে এসেছিল। ভয়াবহ আতঙ্কের পরিবেশ ছড়িয়ে পড়েছিল। মিরপুরে একটি ভবন ধসে 50 জন আহত হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে নারী ও শিশুও। তাদের একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। একটি মসজিদও ভূমিকম্পের কারণে অনেকখানি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে।

ভূমিকম্পের প্রবণতা অনুভূত হয়েছিল পাকিস্তানের পেশোয়ার, রাওয়ালপিন্ডি, লাহোর, স্কার্দু, কোহাত, চারসাদ্দা, কাউসার, ফয়সালাবাদ, শিয়ালকোট, অ্যাবোটাবাদ, মানসেহরা, চিত্রাল, মালকান্দ, মুলতান, শ্যাংলা, ওকারা, নওশেরা, আইটাক ও জাংতে।

ভারত ও আশেপাশের দেশগুলিতে ভূমিকম্পের কারণ

হিমালয় বেল্টের ফল্ট লাইনের কারণে এশীয় অঞ্চলে আরও বেশি ভূমিকম্প হয়। হিন্দুকুশ অঞ্চলও এই ফল্ট লাইনে আসে। 2015 সালের এপ্রিল-মে মাসে নেপাল ভূমিকম্পের কারণে প্রায় 8000 মানুষ মারা গিয়েছিলেন।

হিমালয় কয়েক সেন্টিমিটার হারে উত্তরে পিছলে যাচ্ছে

আমেরিকান বিজ্ঞানীরা হিমালয় ফল্ট লাইনে ভারত সরকারের সহায়তায় একটি গবেষণা চালিয়েছিলেন। মার্কিন জার্নাল লিথোস্ফিয়ার এবং জেজিআর-এ এই সমীক্ষা প্রকাশ করা হয়েছিল। এই সমীক্ষা অনুসারে, হিমালয়টি 700 বছরের পুরানো ফল্ট লাইনে বিদ্যমান। এই ত্রুটি রেখাটি এমন মুখে পৌঁছেছে, যার কারণে যে কোনও সময়ে ভূমিকম্প হতে পারে যা গত 500 বছরে দেখা যায় নি।

Published on: সেপ্টে ২৪, ২০১৯ @ ২০:৫৩


শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

60 − 56 =