তুমি তো ‘ জয় শ্রীরাম ‘ স্লোগান দাও, বিজেপিবাবুরা পাঁচ বছরে একটা রাম মন্দির বানাতে পেরেছো ? -মোদিকে কটাক্ষ মমতার

দেশ রাজ্য লোকসভা ভোট 2019
শেয়ার করুন

আমি জয় হিন্দ বলবো, আমি বন্দেমাতরম বলবো, আমি জয় বাংলা বলবো, আমি তৃণমূল কংগ্রেস বলবো, আমি মা-মাটি-মানুষ বলবো, আমি পচা মোদির নাম বলবো না। আমি পচা মোদির পার্টির নাম বলবো না।’

‘আমাদের পার্টির নাম টিএমসি নয়।এআইটিসি- অল ইন্ডিয়া তৃণমূল কংগ্রেস।’

‘ মাটির মিস্টি বানিয়ে দেবো, তাতে কাজু আর কিসমিসের পরিবর্তে স্টোন চিপ রেখে দেবো। খাবে আর দাঁত ভাঙবে।’  

Published on: মে ৭, ২০১৯ @ ১৬:৫৭

এসপিটি নিউজ, বিষ্ণুপুর, ৭ মে:  এখন চলছে ‘জয় শ্রীরাম’ ধ্বনি নিয়ে একে অন্যের বিরুদ্ধে তোপ।প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি যখন বলছেন- মমতাদিদির উদ্দেশ্যে আমিও ‘জয় শ্রীরাম’ স্লোগান দিচ্ছি। তাহলে দিদি আমাকেও জেলে পুরবে। তাহলে জেলে গিয়ে অঈ নির্দোষ লোকগুলিএর সেবা তো করতে পারবো। আর তখন পালটা মোদিকে কটাক্ষ করে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বললেন- ‘জয় শ্রীরাম’ ধ্বনি তো দিচ্ছো, তা বিজেপিবাবুরা, পাঁচ বছরে রামমন্দির কি বানাতে পেরেছো? গতকাল বিষ্ণুপুরের সভায় দাঁড়িয়ে এভাবেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে আক্রমণ করেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

‘জয় শ্রীরাম’ ধ্বনিতে আপত্তি

1)  মমতা বলেন- “বিজেপি দল ধর্ম নিয়ে রাজনীতি করে -তুমি ঠিক করবে আমরা কি স্লোগান দেবো? আমাদের স্লোগান কি? আমরা বাংলার মানুষ, স্বাধীনতার আন্দোলনে দেখেছি। নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বোস বলেছিলেন- জয় হিন্দ। আমরা জয় হিন্দ স্লোগান দিই- এটা আমাদের তৃণমূল কংগ্রেসের স্লোগান। আমরা কোন স্লোগানটা দিই- বন্দেমাতরম। ঋষি বঙ্কিম চন্দ্র চট্টোপাধ্যায় লিখেছিলেন। সেই বন্দেমাতরম আমাদের স্লোগান।আমরা বলি- বাংলার মাটি বাংলার জল। অথবা জাতীয় সঙ্গীত করি ‘জনগন মন অধিনায়ক জয় হে।’

কোনও একজনের নামে স্লোগান আমরা দি না

2) কিন্তু এটা কোনওদিনও শিখিনি – আমরা মা দুর্গাকে যখন বিসর্জন দি যখন পুজো করি যখন ঢাক বাজাই – তখন আমরা ‘জয় মা দুর্গা কি জয়’ বলি, কি তাই তো? জয় মা কালী কি জয় বলি। কিন্তু আমরা কখনও একটা ধ্বনি দিই না যে ধ্বনিটা বিজেপি দেয়। যে তার ধ্বনিটা মিলিত হবে। কোনও একজনের নামে একটা ধ্বনি দেবে। আমরা এটা করি না।

আমরা তো অনেক মন্দির গড়েছি তোমরা কি রামমন্দির গড়তে পেরেছো

3) ওদের জিজ্ঞেস করুন – “তুমি যে রাম নাম করো তুমি যে পাঁচ বছর ক্ষমতায় ছিলে আমরা যদি দক্ষিণেশ্বরে স্কাই ওয়াক তৈরি করতে পারি, আমরা যদি স্বামী বিবেকানন্দের বাড়ি অধিগ্রহণ করে নতুন করে করতে পারি, নিবেদিতার বাড়ি রঙ করতে পারি, আমরা যদি তারাপীঠের মন্দির করতে পারি, আমরা যদি বেলুড় মঠ করতে পারি, আমরা যদি কালী মন্দির করতে পারি, আমরা যদি মা তারার মন্দির করতে পারি, আমরা যদি বক্রেশ্বর করতে পারি, আমরা যদি কঙ্কালেশ্বরী করতে পারি – তুমি বিজেপির বাবুরা পাঁচ বছরে একটা রাম মন্দির বানাতে পেরেছো? তুমি তো ‘জয় শ্রীরাম স্লোগান দাও- একটাও রাম মন্দির বানাতে পেরেছো?

পার্টির ইলেকশন এজেন্ট রামচন্দ্র

4) নির্বাচন আসলে রামচন্দ্র তোমার পার্টির ইলেকশন এজেন্ট হয়ে যায় বুঝি? নির্বাচন আসলে রামচন্দ্র তোমার পার্টির ইলেকশ্ন এজেন্ট হয়ে যায়- তখন তোমরা ‘জয় শ্রীরাম ধ্বনি তোলো। রামচন্দ্র মা দুর্গার পুজো করেছিল ঠিক আছে। তোমার স্লোগান কেন দেবো? আমি জয় হিন্দ বলবো, আমি বন্দেমাতরম বলবো, আমি জয় বাংলা বলবো, আমি তৃণমূল কংগ্রেস বলবো, আমি মা-মাটি-মানুষ বলবো, আমি পচা মোদির নাম বলবো না। আমি পচা মোদির পার্টির নাম বলবো না।”

এত বড় ক্ষমতা বাংলার কালচার ভুলিয়ে দেবেন। তুমি কাউকে জোর করতে পারো না। যারা আগে হাফ প্যান্ট পরে ঘুরে বেড়াত তারা এখন শপিং মল তৈরি করে বাক্স নিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে। আর মোদি বাবু, পাঁচ বছরের মধ্যে সাড়ে চার বছর বিদেশে ঘুরে বেড়িয়েছেন। আর নির্বাচনের সময় ভোট চাই।

আমি তোলাবাজ! তুমি কি

5) তুমি আমাকে বলছো আমি তোলাবাজ। আমি বলছি আমাদের পার্টির নাম টিএমসি নয়। এটার নাম এআইটিসি- অল ইন্ডিয়া তৃণমূল কংগ্রেস, এটা জানা উচিত। পার্টিটার নামটাই তুমি জানো না।আমার দল ন্যাশনাল পার্টি। তুমি আমাকে তোলাবাজ বলছো। আমি যদি তোলাবাজ হই তুমি কি? তোমার পা থেকে মাথা পর্যন্ত মানুষ খুনের রক্ত। দাঙ্গা করেছো।দাঙ্গাবাজ।

বাংলায় পাবে একটা রসোগোল্লা। মনে রাখবেন, আমরা আপনাকে একটা মাটির মিস্টি বানিয়ে দেবো। সেই মিস্টিতে কাজু বাদাম আর কিসমিসের পরিবর্তে স্টোন চিপ রেখে দেবো। খাবে আর দাঁত ভাঙবে। খাবে আর দাঁত ভাঙবে।

Published on: মে ৭, ২০১৯ @ ১৬:৫৭


শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

14 + = 18